বাংলাদেশে থেকে খুব সহজেই গার্মেন্টস বায়ার পাওয়ার উপায়

বাংলাদেশে থেকেই গার্মেন্টস বায়ার পাওয়ার উপায় যদি আপনাদের, 

জানা থাকে তাহলে কিন্তু আপনারা অনেক সহজেই বায়ার পেয়ে যাবেন। গার্মেন্টস এর বায়ার পাওয়া কিন্তু এখন বেশ প্রতিযোগিতা পূর্ণ একটি ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর তাই, গার্মেন্টস বায়ার পাওয়ার জন্য কিন্তু আপনাদেরকে কয়েকটা কৌশল অবলম্বন করা লাগবে।

গার্মেন্টস বায়ারদের লিস্ট হতে কিন্তু বায়ার অনেক সহজেই পাওয়া যায়। কিন্তু একটা বিষয় আপনাদেরকে সব সময় মনে রাখতে হবে আর সেটা হল, গার্মেন্টস বায়ার পাওয়ার সবথেকে বড় কৌশল হচ্ছে বায়ারদের কাছে ভাল কিছু অফার করতে হবে আপনাদেরকে তাহলেই হবে। 

গার্মেন্টসের ক্ষেত্রে দেখা যায় যে ইউরোপিয়ান বায়ার অনেক বেশি পরিমানে থাকে। তবে, ইউরোপ হোক অথবা আমেরিকা হোক, বায়ার পাওয়ার উপায় যদি আপনাদের জানা থাকে তাহলে কিন্তু আপনারা অনেক সহজেই যে কোন দেশের বায়ার পাওয়া আপনাদের জন্য সম্ভব হবে। 

আমি আজকে আপনাদের সাথে কিছু বায়িং হাউজ এর মালিকাদের বায়ার পাবার টেকনিকগুলো আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করবো। বায়ার খোঁজার সময়ে প্রত্যেক জনের কিন্তু গোপন কিছু কৌশল বা পদ্ধতি থাকে। আজকে আমি আমাদের এই আর্টিকেলের ভিতরে আপনাদের সাথে আমি খুব সহজে গার্মেন্টস বায়ার পাওয়ার ১০টি উপায় নিয়ে আলোচনা করব।

গার্মেন্টস বায়ার পাওয়ার উপায়

গার্মেন্টস বায়ার পাওয়ার জন্য অবশ্যই ১টি বায়িং হাউজ যদি থাকে আপনাদের কাছে সেটা সব থেকে ভাল হবে। এটা, আপনাদের প্রতি বায়ারদের কাছে অনেকটাই  বিশ্বা্তাইয়ার আস্থা বৃদ্ধি করবে। 

. ইউনিক এবং ভাল কিছু অফার করবেন

গার্মেন্টস এর বায়ার পাওয়ার কাজটা বলতে গেলে কিন্তু অনেকটাই প্রতিযোগিতাপূর্ণ। আর এই প্রতিযোগিতা পূর্ণ বাজারে কিন্ত গার্মেন্টস বায়ার পাওয়ার সব থেকে সহজ কৌশল হচ্ছে, বায়ারদেরকে অন্যদের কাছ হতে আলাদা ও ভাল কিছু অফার করতে হবে আপনাদেরকে তাহলেই হবে। কিছু কিছু জিনিস রয়েছে যেটা কিন্তু আপনাদেরকে অবশ্যই দেওয়া লাগবে। যেমন মনে করুন যে : 

·   পণ্যের গুণগত মান ঠিক রাখতে হবে।

·   সঠিক সময়েতেই আপনাদেরকে পণ্য ডেলিভারি করে দিতে হবে, দেরি করা যাবে না।

·    পণ্যের নিরাপত্তা  নিশ্চয়তা ঠিক করা লাগবে।

·   পোশাকে ক্যামিকেল এর স্বাস্থ্যকর মাত্রা ঠিক রাখা লাগবে। 

. কোম্পানি ওয়েবসাইট তৈরি

আপনারা যদি এই বিষয়টা ভেবে থাকেন যে, বর্তমান সময়ে কোন বায়িং হাউজ এর ওয়েবসাইট নেই, তাহলে এই বিষয়টা চিন্তা করা ও কিন্তু আপনাদের জন্য অনেক বড় ভুল হবে। আপনাদের কোম্পানি এর সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা পাওয়া যাবে এই ওয়েবসাইট এর ভিতরেই। 

কারণ, ওয়েবসাইট এর মাধ্যমেই কিন্তু আপনারা আপনাদের সাম্প্রতিক বায়ার এর কাজগুলোকে দেখাতে পারবেন। আর তাছাড়া ও, আপনাদের কর্মী এবং কোম্পানি এর শর্ট প্রোফাইলও দেখিয়ে দিতে পারবেন এই ওয়েবসাইট দিয়েই।

ওয়েবসাইট জদি আপনাদের থাকে তাহলে কিন্তু প্রোফেশনালিজমের প্রথম ছাপ এটার ভিতরে ফুটে উঠে। আর ১টি ভাল মানের ওয়েবসাইট এর দ্বারা কিন্তু আপনারা অন্যান্য বায়িং হাউজ হতে এগিয়ে থাকতে পারবেন। 

কোম্পানির ওয়েবসাইট বানানোর জন্য কিন্তু আপনাদের খুব বেশি পরিমানে একটা টাকা খরচ করা লাগবে না। 

বাংলাদেশে বসে ও কিন্তু আপনারা ইচ্ছা করলে আপনাদের ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন। কোম্পানির ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য, আপনি ইচ্ছা করলে কিন্তু বিভিন্ন Web Devloper আছে তাদের সাথে Contact করতে পারেন তারা কিন্তু অল্প কিছু পরিমানে সম্মানী নিয়েই আপনাদের ওয়েবসাইটটিকে সুন্দর করে বানিয়ে দিবে। 

. ডিজিটাল মার্কেটিং 

বর্তমান সময়ে প্রতিটি বড় বড় ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান হতে শুরু করে দিয়ে ছোট ছোট কোম্পানি ও ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ করে থাকে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ করে কিন্তু অনেক অল্প  সময়ের ভিতরে আর স্বল্প খরচেই আপনারা অনেক বায়ার পেয়ে যাবেন। 

যেহেতু ইতোপূর্বে আপনাদের ওয়েবসাইট আছে। তাই, আপনাদের কাছে জেহুতু ওয়েবসাইট রয়েছে সেহুতু কিন্তু বায়ারদের কাছে পৌঁছানো এর জন্য হলে ও  আপনাদেরকে ডিজিটাল মার্কেটিং করতে হবেই।

বর্তমান সময়ের সবচেয়ে ভাল মানের কয়েকটা ডিজিটাল মার্কেটিং পদ্ধতি নিচে দিয়ে দিলাম দেখে নিন।

Social Media Marketing

ইউরোপ এর অধিকাংশ বায়ার যারা আছেন তাদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য কিন্তু আপনাদেরকে জন্য সর্বাধিক সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম হচ্ছে লিংকডইন। আপনাদের যদি এখনও লিংকডইন প্রোফাইল না থেকে থাকে তাহলে, এখনই খুলে নিবেন । 

লিংকডইনে নিয়মিত ভাবে আপনাদেরকে আর্টিকেল, ভিডিও পোস্ট করা লাগবে তাহলে কিন্তু সরাসরি সম্ভাব্য বায়ার যারা আছে আপনারা তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে নিতে পারবেন খুব সহজেই। ‘sourcing’, ‘apparel’, ‘design’, ‘fashion’ এই টাইপের  শব্দ সার্চ কিংবা ট্যাগ ব্যবহার করে আপনাদেরকে গ্রুপে জয়েন করা লাগবে। তাছাড়া ও কিন্তু, ফেসবুক পেজ খুলে রেখে দিতে পারেন। 

Search Enginee Optimization

অনেক বিদেশি বায়ার রয়েছে যারা গুগলে গিয়ে সাপ্লাইয়ার খুঁজে থাকে। এখন, আপনাদের ওয়েবসাইটটিকে গুগলের প্রথমে পেজে নিয়ে আসতে পারেন তাহলে, কিন্তু আপনারা অনেক সহজে বায়ারদের আকর্ষণ করে ফেলতে পারবেন।  

বিজ্ঞাপন দিতে হবে

ফেসবুক, গুগল অথবা অন্য যে কোন ডিজিটাল মাধ্যমেই কিন্তু আপনারা বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। আর তাহলে এর ফলে কিত্নু দেখা যাবে যে, সরাসরি বায়ারদের সঙ্গে আপনাদের একটা ভাল সম্পর্ক হয়ে উঠবে, মানে তাদের সাথে Contact করা আপনাদের জন্য অনেক সহজ হবে। তাছাড়া ও কিন্তু, বিদেশী ম্যাগাজিন অথবা বায়ার যারা আছে তাদের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত এমন জায়গা গুলোতে অ্যাড তথা বিজ্ঞাপন দিবেন।

. বায়ার ডাটাবেস ওয়েবসাইট থেকে হেল্প নিবেন

অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে গেলে আপনারা বিদেশি বায়ারদের নাম আর বিস্তারিত সকল তথ্য  পেয়ে যাবেন। নিচের ওয়েবসাইটটিতে গেলেও আপনারা পেয়ে যাবেন:

  • Retail-Index

আবার অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যেখানে বায়াররা  নিজেরাই এসে রিকোয়েস্ট করে থাকেন। আর এর মানে হচ্ছে , এইখানে বায়ার সরাসরি আপনাদেরকে ম্যাসেজ করবে তাদের প্রোডাক্ট এর জন্য। অর্থাৎ, আপনাদের জন্য এইটা বিশাল বড়  এক সুযোগ বায়ার পাওয়ার জন্য। তবে, অনেক ওয়েবসাইট আছে সেখানে দেখা যায় যে, ওয়েবসাইট এর ভিতরে সাইন আপ করতে হলে টাকা দিতে হয়।

·       Alibaba

·       Foursource

·       Fibre2Fashion Marketplace

·       Sewport

·       Indiamart 

·       Apparel Buyer Contact

. বাণিজ্য মেলায় যোগ দিবেন  

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মেলাগুলোতে আপনাদেরকে যোগ দেওয়া লাগবে। আর এতে করে কিন্তু  আপনাদের কোম্পানি এর প্রচার প্রসার ঘটবে থাকবে। আর তাছাড়া ও কিন্তু, এর ফলে আপনারা সরাসরি বায়ার ও পেয়ে যাবেন। বাণিজ্য মেলা হতে যদি কোন বায়ারদের সঙ্গে কানেক্ট করতে পারেন। 

তাহলে কিন্তু আপনাদেরকে মেলা শেষে অবশ্যই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা লাগবে। বাংলাদেশের ভিতরে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা হয়ে থাকে। তাছাড়া ওঁ কিন্তু, বিভিন্ন দেশে ও বাণিজ্য মেলা হয়ে থাকে। যেমন মনে করুন যে:

·       Première Vision

·       Texworld

·       Munich Fabric Start

·       ILM

·       Pitti Filati

·       APLF

·       Apparel Sourcing

·       Interfilière

·       ISPO

·       A&A

·       ACLE

·       AFSW

. সহযোগী সংগঠনগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করবেন

গার্মেন্টস ভিত্তিক বিভিন্ন সংগঠন আছে সেগুলোর সঙ্গে আপনাদেরকে যোগাযোগ রাখা লাগবে, তাদের, নিকট হতে গার্মেন্টস বায়ারদের খবর নিতে পারেন। অনেক সংগঠন আর তাদের সঙ্গে কিন্তু বায়ারদের সম্পর্ক থাকে। আর এর ফলে কিন্তু, বায়ার পাওয়ার আপনাদের জন্য ওনেক সহজ হয়ে যাবে। 

আমাদের শেষ কথা 

তাহলে এইগুলোই ছিল কিন্তু আজকের গার্মেন্টস বায়ার পাওয়ার উপায় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা। গার্মেন্টস এর পণ্য বিদেশে রপ্তানি করবার আর ও অনেক সহজ উপায় আছে, সেই সকল উপায় কিন্তু আপনাদেরকে কাজ করতে করতে জেনে নিতে হবে। 

আশা করি যে, আজকে আমাদের এই আর্টিকেলটি আপনাদের অনেক ভাল লেগেছে। আমাদের এই আর্টিকেলটি যদি আপনাদের কাছে ভাল লাগে তাহলে আমাদের এই লেখাটিকে আপনাদের বন্দুদের কাছে শেয়ার করে দিবেন। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *