0

পুরাতন বইয়ের ব্যবসা করার আইডিয়া

Share

অনেকেই আছেন যারা বই বিক্রি করার বিজনেস করতে চানকিন্তু নতুন বই কিনে সেগুলোকে নিয়ে বিজনেস করতে হলে অনেক বেশি টাকার দরকার হয়ে থাকে। আর অনেকের কাছেই প্রথম দিকে খুব বেশি টাকা থাকে না, আর যার ফলে দেখা যায় যে বিজনেস শুরু করতে পারে না। 

আমি আজকে আপনাদের সাথে শেয়ার করব কিভাবে আপনি পুরাতন বই বিক্রি করার বিজনেস শুরু করবেন সেই বিষয়টা নিয়ে। তাহলে আসুন আর কথা না বাড়িয়ে আজকের আলোচনা শুরু করা যাক।

বইয়ের দোকান কোথায় দিবেন ?

আপনাকে বই এর দোকান দিতে হবে কলেজ কিংবা ইউনিভার্সিটি এর সামনে। যাতে করে কলেজ বা ইউনিভার্সিটি এর Studnets দের কাছে আপনি বই বিক্রি করতে পারেন। এক কথায় বললে যাদের বই এর দরকার হবে তারা আপনার কাছে আসবেই।   

বই কারা কিনবে: অনেকেই আছেন যারা নতুন বই কিনতে পারে না টাকার অভাবে, কারন সবাই তো আর্থিক ভাবে সচ্ছল থাকে না। তাই অনেকেই পুরাতন বই কিনেই পড়াশোনা করে। আপনি যদি স্কুল কলেজ বা ইউনিভার্সিটি এর সামনে দোকান দিতে পারেন তাহলে অনেকে Students আপনাদের কাছ থেকে বই কিনে নিবে। আপনি চাইলে অনলাইনের মাধ্যমে ও আপনার বিজনেস চালাতে পারেন অনেকেই আছে যারা অনলাইনের মাধ্যমে ও ঘরে বসে বই অর্ডার করে থাকে।

যেমন আমাদের বাংলাদেশের ভিতরে রকমারি বই বিক্রি করার জন্য অনেক জনপ্রিয়। তবে তারা নতুন বই বিক্রি করে পুরাতন বই না সে যাইহোক বই তো বইই সেটা পুরাতন হোক বা নতুন। আপনি ফেসবুক এর মাধ্যমে আপনার বই এর ছবি বিভিন্ন গ্রুপে শেয়ার করে দিতে পারেন, এরপরে যাদের বই লাগবে তারাই আপনার সাথে যোগাযোগ করে আপনার কাছ থেকে বই কিনে নিয়ে যাবে। 

পুরাতন বই কিভাবে কিনবেন ?

আপনাদের মনে এখন প্রশ্ন আসতেই পারে যে, আমি এই পুরাতন বইগুলোকে কিভাবে কিনবো? অনেক Students আছে যারা পরিক্ষা দেওয়া হয়ে গেলে বই বিক্রি করে দেয়। পুরাতন বই দিয়ে করবেই বা কি? মনে করেব, একটা Students hsc exam দিছে এখন ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হবে তার তো আর আগের বইগুলো কোন কাজে লাগবে না তাই সে বিক্রি করে দেয়। 

কত টাকা লাগবে কিনতে: আপনি এই বইগুলোকে অনেক কম দামেই কিনতে পারবেন। আমার কথাই বলি আমি ৯ এবং ১০ এর যে বই আছে আর গাইড আছে সেগুলোকে পুরাতন বই কেনা বেচার দোকানে গেলাম প্রায় অনেকগুলো বই তারা আমাকে ২৫০ টাকা দিল। তার ভিতরে আবার কিছু বই নেয়নি মানে যেগুলো তাদের লাগে না। 

আবার একদিন একটা গ্রামার বিক্রি করতে গেছি Hsc এর ৪৫০ টাকা দিয়ে কিনেছিলাম আর বিক্রি করতে গিয়ে তারা আমাকে দিয়েছিল শুধু ৫০ টাকা আর বলছে তাদের নাকি এইগুলো বিক্রি করে খুব বেশি একটা লাভ হয় না, তাই তারা এর থেকে বেশি দিতে পারবে না।

আমি তাদের কথা বিশ্বাস করতে পারছিলাম না তাই আমি আমার এক বন্ধুকে দোকানে পাঠালাম আমি যে বইটা বিক্রি করেছি সেটাকে সে কিনতে গিয়ে দাম জিজ্ঞাস করল বলে যে, ২০০ টাকার কমে দিতে পারবে না।

তারপরে আমার বন্ধু আমাকে এসে বলছিল আরকি ২০০ টাকা চায় আর আমাকে দিল ৫০ টাকা মূলত এই বিজনেসে অনেক কম টাকা খরচ করে অনেক টাকা লাভ করতে পারবেন। আশা করি বুজতে পারছেন এই বিজনেসে কি পরিমানে লাভ হয়ে থাকে। আপনি চাইলে ও এই বিজনেস শুরু করে দিতে পারেন। আপনি ইচ্ছা করলে ক্লাস ০১ – ১০ এর বইগুলো ও রাখতে পারেন।

তারপরে বিভিন্ন চাকরির বই অ্যাডমিশন এর বই রাখতে পারেন। এক কথায় বললে মানুষের যে বইগুলো এর প্রতি সব থেক বেশি পরিমানে চাহিদা রয়েছে সেইগুলোকে আপনার সংগ্রহে রেখে দিতে পারেন। আপনি এই বিজনেস ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা নিয়েই শুরু করে দিতে পারেন।

দোকান নিতে Advanced টাকা দিতে হবে সেটাই আসলে খরচ আর বইকিনতে খুব বেশি টাকা লাগবে না। ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা বই কিনলেই অনেক বই কিনতে পারবেন। আর কি পরিমানে লাভ করতে পারবেন সেটা তো আপনাদেরকে আগেই বলছি। আশা করি আপনি পুরাতন বইয়ের ব্যবসা করার আইডিয়া পেয়ে গেছেন। আর এই রকমের বিভিন্ন রকমের বিজনেস আইডিয়া পেতে আমাদের ওয়েবসাইট এর সাথেই থাকুন।