কিভাবে ফ্রীতে এসইও এর কাজ শিখবেন (Seo এর কাজ শেখার উপায়)

আমাদের আজকের আর্টিকেলে আপনাদের সাথে আলোচনা হবে এসইও নিয়ে, এসইও সম্পর্কে সকল তথ্য স্টেপ বাই স্টেপ আপনাদের সাথে শেয়ার করব। আসুন তাহলে আর কথা না বারিয়ে জেনে নেই।

এসইও কি ?

এসইও হল সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, আর যেটাকে আমরা সকলে এসইও নামে চিনি। আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইট এর এসইও করেন, তাহলে সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্ট পেজে সবার আগে আপনার ওয়েবসাইট দেখাবে। এসইও করলে আপনার ওয়েবসাইট এর ভিতরে অনেক ভিসিটর পাবেন। আর আপনাকে কনটেন্ট বানানোর আগে একটা জিনিস খেয়াল রাখা লাগবে, ভিসিটর কি চাচ্ছে, মানুষ কি নিয়ে জানতে চাচ্ছে, এটা আপনাকে জানা লাগবে। 

আর তারপরে সেই বিষয়ের উপরে আপনাদের কনটেন্ট বানিয়ে আপনাদের ওয়েবসাইট এর ভিতরে দিতে হবে। আর আপনি যদি এমন কোন বিষয় নিয়ে লিখেন যেটা কেউ সার্চ করে না খুজে না তাহলে দেখা যাবে আপনার আর্টিকেল লেখা বৃথা যাবে। কারন কেউ যদি সার্চ না করে তাহলে আপনার আর্টিকেল কেই বা পড়তে আসবে বলেন? তাই সব সময়ে আপনি কিওয়ার্ড রিসার্চ করে লেখার চেষ্টা করবেন।

Seo এর কাজ কি ?

আপনি যদি একটি ওয়েবসাইট এসইও করেন তাহলে সার্চ রেজাল্টে সবার প্রথমে সেই ওয়েবসাইট দেখাবে। আর একটা ওয়েবসাইটকে যদি Google search result এর উপরে আনা যায় তাহলে সেখান থেকে অনেক ভিসিটর আসার সম্ভাবনা রয়েছে। 

কারন মানুষেরা Google এ গিয়ে সার্চ করার পরে যেটা সবার আগে আসে বা প্রথম পেজে যেই আর্টিকেল বা ওয়েবসাইট আসে সেই ওয়েবসাইট এর ভিতরেই ভিসিট করে। সবার পিছনে যেসকল ওয়েবসাইট আছে সেগুলোতে খুব কম মানুষেই যায়। তাই আপনাকে এসইও করতে হবে শুধু একটা ওয়েবসাইটকে Google search result এর উপরে নিয়ে আসার জন্য, আর এটাই হল এসইও এর কাজ। আশা করি আপনি বুজতে পেরেছেন এসইও এর কাজ কি, বা এসইও করলে লাভ কি ?   

এসইও মানে কি: এসইও মানে হল সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, আপনি যদি সঠিক ভাবে এসইও করতে পারেন, তাহলে আপনাদের ওয়েবসাইট এর ভিতরে প্রচুর পরিমানে ভিসিটর পাবেন। আর এসইও এর মানুষেরা অনেক আগে থেকেই করে আসছে। কারন ওয়েবসাইট বানানোর কাজ আজকে থেকে আরও ২০ বছর আগে থেকেই শুরু হয়েছে। আশা করি আপনি বিষয়টা বুজতে  পারছেন।    

এসইও কিভাবে শিখবো  

আপনি যদি এসইও শিখতে চান, তাহলে আপনাকে অনেক রিসার্চ করা লাগবে, এবং অনেক সময় দিতে হবে। ১/২ দিনে আপনি শিখতে পারবেন না, আর আপনার আসলে এসইও এর কাজ শেখার ইচ্ছা থাকা লাগবে। ইচ্ছা না থাকলে যত চেষ্টা করেন না কেন, কোন কাজ হবে না। 

ইউটিউব থেকে কিভাবে শিখবেন : ইউটিউব থেকে ভিডিও দেখে শিখতে পারেন। ইউটিউব এর ভিতরে অনেক চ্যানেল আছে যেখানে এসইও এক্সপার্ট যারা আছেন, তারা এসইও এর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তাদের চ্যানেল এর ভিতরে ভিডিও বানিয়ে শিখিয়ে থাকে, আপনি চাইলে তাদের ভিডিও গুলো দেখে ও কাজ শিখতে পারেন।   

Online Free Course (এসইও কোর্স ) : এরপরে আপনি চাইলে অনলাইন থেকে বিভিন্ন ফ্রী কোর্স করতে পারেন। Udemy নামে একটি ওয়েবসাইট আছে আপনি চাইলে শেখানে একটি অ্যাকাউন্ট করে, তারপরে শেখান থেকে এসইও এর কাজ শিখতে পারেন। তবে আপনি যদি ইংলিশে ভাল না হয়ে ইংলিশ যদি ভাল না বুজেন, তাহলে আপনি এই ওয়েবসাইট থেকে শিখতে পারবেন না। কারন এই ওয়েবসাইট এর ভিতরে সকল ভিডিও ইংলিশে করানো হয়ে থাকে। 

Blog Website Content : বাংলাদেশ বা বাংলাদেশের বাহিরে অনেক এসইও এক্সপার্ট আছেন, তাদের নিজেদের পার্সোনাল ওয়েবসাইট আছে অনেকের, তারা সেখানে এসইও নিয়ে অনেক তথ্য শেয়ার করে থাকে। আপনি যদি তাদের ওয়েবসাইট এর ভিতরে প্রতিদিন ভিসিট করেন, তাহলে আপনি তাদের ওয়েবসাইট থেকে এসইও সম্পর্কে সকল ধরনের আপডেট নিউজ পেয়ে যাবেন। 

ফেসবুক গ্রুপ থেকে চাইলে শিখতে পারবেন : আপনি যদি ফেসবুক গ্রুপ থেকে শিখতে চান তাহলে সেটা ও করতে পারেন। অনেক ফেসবুক গ্রুপ আছে যেখানে শুধু এসইও সম্পর্কে কথাবার্তা হয়ে থাকে। বিভিন্ন এসইও এক্সপার্ট আছেন যারা এই সকল গ্রুপ পরিচালনা করে থাকেন। 

এখানে যারা নতুন মানে এসইও এর কাজে নতুন তারা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করেন। এখানে যারা এক্সপার্ট রয়েছেন তারা তাদের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। আর আপনি চাইলে ও কিন্তু এই সকল গুরুপে অ্যাড হয়ে এসইও এর কাজ বা এসইও সম্পর্কে সকল আপডেট এখান থেকে পেতে পারেন খুব সহজেই। 

এসইও শিখতে কতদিন লাগে ?

আপনি যদি এসইও এর কাজ শিখতে আগ্রহি হয়ে থাকেন, যদি আপনার শেখার প্রবল ইচ্ছা থাকে তাহলে আপনার খুব বেশি একটা সময়ের দরকার হবে না। আপনি যদি ৩ থেকে ৬ মাস সম্পূর্ণ মনোযোগ দিয়ে শেখার চেষ্টা করেন, তাহলে আশা করি আপনি এসইও এর কাজ শিখে যাবেন। তবে একটি কথা সত্যি যে, আপনি যত বেশি সময় দিবেন বা এই এসইও নিয়ে যত বেশি পরিমানে ঘাটাঘাটি করবেন তত তাড়াতাড়ি আপনি শিখে যেতে পারবেন। 

তবে এসইও এর অনেক Secret টিপস রয়েছে আর এইগুলোকে শেখার জন্য আপনাদের অনেক সময় লাগবে। আর এই বিষয়গুলো আপনাকে কেউ বলে দিবে না। নিজেকেই খুযে বের করা লাগবে, কাজ করতে করতে এক সময় দেখা যাবে আপনি নিজেই সকল কিছু জানতে পারবেন। তাই লেগে থাকতে হবে, চেষ্টা করতে হবে।

এসইও এর গুরুত্ব

এসইও এর গুরুত্ব অনেক বলে শেষ করা যাবে না। একটি ওয়েবসাইট এর ভিতরে যদি আপনি গুগল থেকে ভিসিটর আনতে চান তাহলে আপনাকে এসইও করা লাগবেই। এসইও না করলে কখনই আপনি ওয়েবসাইট এর ভিতরে ফ্রী ভিসিটর পাবেন না, আর গুগল থেকে যে সকল পাঠকেরা আসে তারা সবাই অরগানিক ভাবে আসে। আর যেটা গুগল অনেক পছন্দ করে, যার ফলে রেঙ্ক পেতে ও অনেক সহজ হয়ে যায় বিষয়টা।   

অনপেজ এসইও

ওয়েবসাইট এর ভিতরে যেসকল কাজ করা হয়ে থাকে সেটাকেই অনপেজ এসইও বলা হয়।যেমন, ওয়েবসাইট এর ডিজাইন, কিওয়ার্ড রিসার্চ, টাইটেল, মেটা ট্যাগ, হেডিং, কনটেন্টের সাইজ, Internal Link, External Link, image Optimization, Alt Tag, Meta Discription, এই সকল বিষ্যগুলোর মত যে কাজ আছে সেগুলোকেই অনপেজ এসইও বলা হয়ে থাকে।

অফ পেজ এসইও

অফ পেজ এসইও হচ্ছে ওয়েবসাইট এর বাহিরে যেসকল কাজ করা লাগে সেগুলো। ওয়েবসাইট এর বাহিরে গিয়ে আপনি যে মার্কেটিং এর কাজ করবেন ওয়েবসাইট এর ভিতরে ভিসিটর নিয়ে আসার জন্য সেটাকেই মূলত অফ পেজ এসইও বলা হয়ে থাকে।

টেকনিক্যাল এসইও

Technical Seo এর ভিতরে অনেকগুলো পার্ট রয়েছে যেমন , Google Analytics, Google News , Google Analytics, Website speed optimization Broken Link , Bing Webmaster এর ভিতরে ওয়েবসাইট অ্যাড করা, এই রকমের যে সকল টেকনিকাল কাজ আছে সেগুলোকেই আসলে  টেকনিক্যাল এসইও বলা হয়ে থাকে। 

আমাদের শেষ কথা:

তাহলে আজকে আমাদের লেখার ভিতরে আপনারা এসইও সম্পর্কে সকল তথ্য জানতে পারলেন। আশা করি আপনাদের কাছে আমাদের এই আর্টিকেলটি অনেক ভাল লেগেছে, আর এই রকমের এসইও সম্পর্কিত নানান আপডেট পেতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইট এর সাথেই থাকুন। 

আর আমাদের আজকের লেখাটি ভাল লাগলে আপনাদের বন্ধুদের কাছে শেয়ার করে দিবেন, তাহলে তারা ও এই বিষয়গুলো জেনে নিতে পারবে খুব সহজেই। আর আমি আমার সংক্ষিপ্ত বক্তব্য এখানেই শেষ করলাম, আল্লাহ হাফেয। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *