অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি কেন ও কিভাবে করবেন

আমাদের আজকের আর্টিকেলের ভিতরে আলোচনা করা হবে, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এবং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কেন করবেন ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। ‌আসুন তাহলে এই বিষয় সর্ম্পকে বিস্তারিত সকল তথ্য জেনে নেয়া যাক। 

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি?  

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হল আপনি একটি কোম্পানির প্রোডাক্ট বিক্রি করবেন এবং সেই কোম্পানি তার বিনিময়ে আপনাকে নির্দিষ্ট পরিমাণে একটা কমিশন দিবে। 

যেমন মনে করুন আপনি একটি কোম্পানির একটি সার্ভিস অথবা তাদের একটি প্রোডাক্ট বিক্রি করলেন এবং সেই প্রোডাক্টটি বিক্রি হওয়ার পরে সেই কোম্পানি থেকে আপনাকে 5 পার্সেন্ট কিংবা 10 করতেন কমিশন দিল। আর এই যে তারা আপনাকে একটা নির্দিষ্ট পরিমাণে কমিশন দিল, এটাকে কিন্তু মূলত অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলা হয়ে থাকে। 

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজটা মূলত হচ্ছে আপনারা বিভিন্ন রকমের কোম্পানির প্রোডাক্ট কিংবা সার্ভিস অথবা বিক্রি করে দিবেন এবং তার বিনিময় আপনারা সেই কোম্পানির কাছ থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা বা কমিশন নিতে পারবেন। আশা করি যে, বিষয়টা বুঝতে পেরেছেন, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং এ বিষয়টা আসলে কি।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কেন করবেন?  

অনেকের মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কেন করবেন বা কিসের জন্য অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজ করবেন। আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজ যদি করেন, তাহলে আপনি ঘরে বসেই যে কোন কোম্পানির প্রোডাক্ট বিক্রি করে বা যে কোন প্রতিষ্ঠান এর সার্ভিস বিক্রি করে বেশ ভালো পরিমাণে একটা কমিশন রোজগার করতে পারবেন ঘরে বসেই।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজ করার জন্য কিন্তু আপনাকে কোন অফিসে গিয়ে কাজ করা লাগবে না। আপনারা আপনাদের ল্যাপটপ অথবা কম্পিউটারের মাধ্যমে ঘরে বসে এই কাজগুলো করতে পারবেন খুব সহজেই।

আপনারা আপনাদের ইচ্ছা মত কাজ করার সুযোগ পাবেন এখানে আপনারা প্রতিদিন চাইলে দুই ঘন্টা থেকে 5 ঘন্টা বা তার থেকে ও বেশি আপনারা যত কোন কাজ করতে পারেন ততক্ষণ চাইলে কাজ করতে পারবেন। আর আপনারা যদি চান যে কাজ করবেন না তাও পারবেন।

আপনি যদি কোন অফিসে চাকরি করতে  চান তাহলে কিন্তু আপনাকে নির্দিষ্ট সময়ের ভেতরে অফিসে যেতে হবে এবং নির্দিষ্ট সময় শেষ হয়ে গেলে অফিস থেকে বের হয়ে আসতে হবে। 

কিন্তু আপনি যদি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজ করেন তাহলে আপনারা নিজেদের ইচ্ছামত যে কোন সময় মানে আপনাদের যে সময়ে ভালো লাগবে কাজ করতে সে সময়ে শুরু করতে পারেন কাজ এবং আপনাদের যদি কাজ করতে ভালো না লাগে, তখন আপনারা কাজ করা বাদ দিতে পারেন। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজ করলে আপনারা সম্পন্ন নিজেদের স্বাধীনতা মত কাজ করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করলে আপনারা ঘুমিয়ে ও যদি থাকেন তাহলে ও কিন্তু আপনাদের কমিশনের টাকা আসতে থাকবে। 

মনে করেন যে, আপনি এক জায়গায় মার্কেটিং করে রেখেছেন এবং সেখান থেকে যদি কেউ আপনার আর্টিকেল বা আপনি প্রোডাক্ট সম্পর্কে যে সকল তথ্য দিয়েছেন, সেগুলো পড়ে তার ভালো লাগে তারপর এসে আপনার এফিলিয়েট লিংক এর মাধ্যমে আপনার কাছ থেকে সেই প্রোডাক্টটি কিনে, মানে আপনার অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর লিংক এর মাধ্যমে সেই কোম্পানির কাছ থেকে প্রোডাক্ট কিনে। 

তাহলে কিন্তু আপনি সাথে সাথে বা প্রোডাক্ট ডেলিভারি হওয়ার পরে আপনারা নির্দিষ্ট পরিমাণে কমিশন পেয়ে যাবেন। 

আর আপনাকে শুধুমাত্র তিন থেকে ছয় মাস পর্যন্ত একটু বেশি পরিমানে সময় দেওয়া লাগবে বা আপনারা যদি মার্কেটিং ভালোভাবে করতে পারেন, তাহলে কিন্তু আপনাদের বিক্রি বাড়বে প্রতিদিনই।  

আপনারা যত বেশি পরিমাণে মানুষের কাছে পৌঁছাতে পারবেন তত বেশি পরিমাণে কিন্তু বিক্রি হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। আর যত বেশি পরিমাণে বিক্রি করতে পারবেন তত বেশি পরিমাণে কিন্তু আপনাদের কমিশনের পরিমাণ বাড়তে থাকবে। আশা করি যে, এফিলিয়েট মার্কেটিং কেন করবেন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করলে লাভ কী এই বিষয়টা সম্পর্কে পরিপূর্ণভাবে ধারণা পেয়ে গেছেন। 

Affiliate Marketing কিভাবে করবেন

আপনি যদি এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে চান, তাহলে আপনাকে বিভিন্ন কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করতে হবে, তারা কত টাকা করে কমিশন দিয়ে থাকে কত পার্সেন্ট পর্যন্ত কমিশন দেয় এবং কিভাবে পেমেন্ট করে এই সমস্ত বিষয়ে সম্পর্কে আপনাদেরকে আগে জেনে নিতে হবে এবং তাদের কোম্পানি বা তাদের প্রতিষ্ঠানে কি কি প্রোডাক্ট বা কি কি সার্ভিস রয়েছে, সেগুলো সম্পর্কে আপনাদেরকে ভালোভাবে আগে জেনে নিতে হবে। 

আপনি যদি তাদের কোম্পানির প্রোডাক্ট কিংবা সার্ভিস সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকে তাহলে আপনাকে সেই কোম্পানির যে প্রোডাক্ট বা সার্ভিস থাকবে সেগুলো নিয়ে যদি আপনি মার্কেটিং করতে পারেন ভালোভাবে, তাহলে কিন্তু আপনারা সেই কোম্পানির সাথে কাজ করতে পারেন। 

কিন্তু আপনি যদি সেই কোম্পানির প্রোডাক্ট ও সার্ভিস সম্পর্কে কাজ করার জন্য আগ্রহী হয়ে থাকেন বা সার্ভিস আপনাদের ভালো না লাগে তাহলে আপনারা অন্য কোম্পানির প্রোডাক্ট ও সার্ভিস আপনাদের কোম্পানির মানে আপনাদের কোম্পানির প্রোডাক্ট ও সার্ভিস ভালো লাগবে বা কমিশনের পরিমাণ বেশি দিবে! সেই কোম্পানিতে আপনারা কাজ করার চেষ্টা করবেন এবং যে কোম্পানি সবথেকে বেশি বিশ্বস্ত সেই কোম্পানির সাথে কাজ করার চেষ্টা করবেন। 

কমিশনের টাকা কিভাবে আপনারা হাতে পাবেন

আপনি যদি একটি কোম্পানির প্রোডাক্ট বিক্রি করেন, তাহলে আপনারা কিন্তু সাথে সাথে টাকা পাবেন না আপনাদের যখন নির্দিষ্ট পরিমাণে এমাউন্ট আপনাদের একাউন্টে জমা হবে তখন আপনারা চাইলে ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে অথবা ডেবিট কার্ড কিংবা মাস্টার কার্ড অথবা অন্য যে কোন কার্ডের মাধ্যমে আপনারা পেমেন্ট নিতে পারেন পেপালের মাধ্যমে চাইলে নিতে পারেন। 

আপনারা যে কোম্পানিতে কাজ করবেন সেই কোম্পানির তথ্যগুলো আগে জেনে নিবেন মানে তারা তাদের কোম্পানীতে Affiliate Marketer হিসেবে কাজ করলে কিভাবে পেমেন্ট করে থাকে, এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জেনে নেবেন।

তবে বেশিরভাগ কোম্পানির দেখা যায় যে ব্যাংকের মাধ্যমে বেশি পেমেন্ট করে থাকে। আপনারা চাইলে ব্যাংকের মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে পারেন আর ব্যাংকের মাধ্যমে বিভিন্ন ওটাই সবথেকে বেশি ভালো। 

কত টাকা হলে পেমেন্ট নিতে পারবেন

আপনারা যে কোম্পানিতে কাজ করবেন সেই কোম্পানি কত টাকা হলে পেমেন্ট করে বা কত টাকা হলে ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা উইথড্র করতে পারবেন, এই বিষয়টি সম্পর্কে আপনারা আগে থেকে ভালোভাবে জেনে শুনে তারপরে কাজ করা শুরু করবেন। বাংলাদেশে অনেক অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কোম্পানি রয়েছে তারা ব্যাংকের মাধ্যমে এবং বিকাশ নগদ রকেটের মাধ্যমে পেমেন্ট করে থাকে।  

আপনারা চাইলে বাংলাদেশের যদি কাজ করেন তাহলে ব্যাংকের মাধ্যমে নিতে পারেন কিংবা বিকাশ নগদ অথবা রকেটের মাধ্যমে নিতে পারেন। তবে আপনারা যদি বাইরের কান্ট্রির প্রতিষ্ঠান সাথে কাজ করেন। 

তাহলে তারা কিন্তু আপনাকে বাংলাদেশের কারেন্সিতে টাকা দিতে পারবে না। তারা অবশ্যই আপনাকে ব্যাংকের মাধ্যমে অথবা পেপাল কিংবা ডেবিট কার্ড অথবা মাস্টার কার্ডের মাধ্যমে টাকা দিবে। আশা করি তা সম্পূর্ণ বিষয়টা বুঝতে পেরেছেন।  

আমাদের শেষ কথা

তাহলে আজকে আমাদের আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনারা জানতে পারলেন, এফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কেন করবেন এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে করবেন। 

কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর টাকা নিবেন এবং কত টাকা হলে পেমেন্ট নিতে পারবেন ও কি কি মাধ্যমে আপনারা আপনাদের টাকাটা আপনাদের হাতে পাবেন। সে বিষয়ে সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে সকল তথ্য জানতে পারলেন। 

এই রকমের বিভিন্ন তথ্য জানার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে সাথেই থাকুন। আর আমাদের আজকে আর্টিকেলটি কেমন লেগেছে সেটা অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন এবং লেখাটি আপনাদের বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করে দিবেন, যাতে করে তারাও এ বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে সকল তথ্য জানতে পারে খুব সহজে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *